গেরিলা যুদ্ধ কি?

১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে নারীদের ভূমিকা ছিল গৌরবোজ্জ্বল। অনেক মুক্তিযোদ্ধা শিবিরে পুরুষের পাশাপাশি নারীদের অস্ত্রচালনা ও গেরিলা যুদ্ধের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। গেরিলা যুদ্ধের মূল লক্ষ্য ছিল পাক সরকারের কাজে বাধা সৃষ্টি করা, অচলাবস্থা সৃষ্টি করা, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করা। বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা, জনগণকে উজ্জীবিত করা, আন্তর্জাতিক সাংবাদিক ও কূটনীতিকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা। মূলত এসব ক্ষেত্রে নারীরা সফলভাবে অংশগ্রহণ করে। তাদের ২ নং ও ১০ নং সেক্টরের অধীনে সংগঠিত ও বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

গেরিলা যুদ্ধে নারীর ভূকিমাঃ মুক্তিযুদ্ধে পাকসেনা ও সহযোগী বাহিনীর নিয়ন্ত্রণাধীন দেশের উল্লেখযোগ্য গুরুত্বপূ্র্ণ শহর ও বন্দর এলাকায় অপারেশন পরিচালনার জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত গেরিলা বাহিনী গঠন করা হয়। বিশেষ প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এই দলগুলোতে নারী গেরিলারা অত্যন্ত সার্থকভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। এসব দল কেন্দ্রীয় অঞ্চলগুলোতে সামগ্রিক অচলাবস্থা সৃষ্টিসহ নৌ-পথে বৈদেশিক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিঘ্নিত করতেও অনেকাংশে সক্ষম হয়। এই বাহিনীগুলোকে ২নং ও ১০নং সেক্টরের অধীনে প্রশিক্ষণ দিয়ে প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন এলাকায় প্রেরণ করা হয়। রাজধানী ঢাকায় অচলাবস্থা সৃষ্টির জন্য ২নং সেক্টরের অধীন ‘ঢাকা গেরিলা বাহিনী’ ও ক্রাক প্লাটুন গঠিত হয়। ব্রাক্ষণবাড়ীয়ার এক সাহসী বধূ ফেরদৌস আরা ঢাকায় অবস্থান করে ঢাকা শহরের বিভিন্ন তথ্য তার বড় ভাই ২নং সেক্টর কমান্ডার খালেক মোশাররফের নিকট প্রেরণ করতেন। এক পর্যায়ে তিনি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করার প্রস্তাব করেন বীরযোদ্ধা মনোয়ারের নিকট। মনোয়ার তার সহযোদ্ধাদের সাথে পরামর্শ করে ফেরদৌস আরাকে ঢাকায় চামেলীবাগস্থ ফিল্ম সেন্সরবোর্ডে টাইম বোমা রাখতে বলেন। তিনি নির্দিষ্ট স্থানে বোমা রেখে চলে আসেন মালিবাগে। আসার সাথে সাথে বোমাটি বিস্ফোরিত হয় এবং বিল্ডিং এর সিঁড়ি ভেঙে যায়। এরপর তিনি বাসস্থান পরিবর্তন করে নারায়ণগঞ্জ জেলার আড়াই হাজার থানায় চলে আসেন। সেই সময় এই থানাটি মুক্তিযোদ্ধাদের দখলে ছিল। পরবর্তীতে তিনি এখান থেকে যুদ্ধের কাযর্ক্রমে অংশগ্রহণ করেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা যোদ্ধা হিসেবে নারীরা অসামান্য অবদান রেখেছেন। নারীরা শুধু গেরিলা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন নি, তারা যোদ্ধাদের পরম মমতায় আগলে রেখেছেন, সাহস যুগিয়েছেন। তাই পুরুষের সহযোদ্ধা হিসেবে নারীর ত্যাগ-তিতিক্ষা, সাহস-নির্ভীকতা বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাসে গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।