পিএইচপি কি? পিএইচপি ভাষার ইতিহাস ।

পিএইচপি ভাষার ইতিহাস ।

পিএইচপি (PHP) একটি ওয়েবভিত্তিক প্রোগ্রামিং ভাষা। এটি মূলত সার্ভার-সাইড স্ক্রিপ্টিং এর জন্য ব্যবহার হয়। পিএইচপি হচ্ছে একটি স্ক্রিপ্টিং ভাষা যা মূলতঃ চলমান ওয়েব সাইট তৈরির জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। এটি কমান্ড লাইন ইন্টারফেস ক্ষমতাকে অন্তর্ভুক্ত করেছে এবং স্ট্যান্ড-এলোন গ্রাফিক্যাল অ্যাপলিকেশনকে ব্যবহার করতে পারে।

পিএইচপি যেভাবে এলোঃ

পিএইচপি লাইসেন্স এর অধীনে একটি ফ্রী সফটওয়্যার, যা পিএইচপি ব্যবহারের সীমাবদ্ধতা থাকলেও জিএনইউ জেনারেল পাবলিক লাইসেন্স (জিপিএল) এর সহিত সামঞ্জস্যপূর্ণ। পিএইচপি একটি বহুল ব্যবহৃত সাধারণ উদ্দেশ্যে সাধনের স্ক্রিপ্টিং ভাষা. যা ওয়েব ডেভলপমেন্টের জন্য বিশেস উপযোগী এবং এইচটিএমএল আকারে প্রকাশ করা যায়। ইহা সাধারণত একটি ওয়েব সার্ভারে পরিচালিত হয়। যা পিএইচপি কোডকে নির্দেশনা আকারে ব্যবহার করে এবং ওয়েব পাতা তৈরি করে ফলাফল প্রদর্শন করে। এটি বেশির ভাগ ওয়েব সার্ভারে প্রয়োগ করা যায় এবং প্রায় সকল অপারেটিং সিস্টেম ও অবস্থান ভেদে বিনামূল্যে ব্যবহার করা যায়। ৩৫ মিলিয়নেরও বেশি ওয়েবসাইট ও ১ মিলিয়ন ওয়েব সার্ভারে পিএইচপি ব্যবহার হচ্ছে।

পিএইচপি এর পুরো নাম ছিলো Personal Home Page 1994 সালে গ্রীনল্যান্ডিক প্রোগ্রামার রাসমুস লার্ডর্ফ (Rasmus Lerdorf)  এর হাত ধরে কিছু সংখ্যক CGI Biraries এর মাধ্যমে পিএইচপি এর যাত্রা শুরু হয়। তিনি তার নিজস্ব সাইটের কিছু Perl কোড কে প্রতিস্থাপন করার জন্য C Language দিয়ে লিখিত পিএইচপি নামক ল্যাঙ্গুয়েজটি তৈরি করেন। শুরুতে এটি শুধু তার রিজিউমে ও সাইটের ট্রাফিক সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করত। পরবর্তীতে তিনি এই CGI binaries গুলোকে FI (Form Interpreter) এর সাথে সংযুক্ত করে PHP/FI এর তৈরি করেন, যা ডেটাবেজ এর সাথে সংযুক্ত হওয়ার মাধ্যমে সাধারণ ডায়নামিক ওয়েব এপ্লিকেশন তেরির পথ উন্মুক্ত করে দেয়। ১৯৯৫ সালের ৮ই জুন তিনি PHP/FI কে সাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেন যা একে ত্রুটিমুক্ত ও অধিকতর কার‌্যকরী করার আরেকটি ধাপ হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। এটি পিএইচপির ভার্সন-২ নামে পরিচিত যাতে আজকের পিএইচপির প্রায় সকল মৌলিক ফাংশনালিটি বিদ্যমান ছিল। এই ভার্সনে Perl এর মতো ভ্যারিয়েবল, ফর্ম হ্যান্ডলিং ও HTML embed করার সুবিধা যোগ করা হয়।

পিএইচপি ভাষাটি বর্তমানে খুবই জনপ্রিয়, ওপেন সোর্স ভিত্তিক একটি স্ক্রিপ্টিং ভাষা যা মূলত ওয়েব এপ্লিকেশন ডেভেলপ করার জন্য ব্যবহার করা হয়। Yahoo, Facebook এর মতো বড় বড় ওয়েব সাইট এবং এপ্লিকেশনগুলো পিএইচপিতে লেখা। আজকের এই পিএইচপি এত জনপ্রিয় হলেও তাকে পার করতে হয়েছে সুদীর্ঘ ২৫টি বছর  পিএইচপি রিলিজের সময় (জুন ৮, ১৯৯৫) রাসমুস পাবলিক ফোরামে যে মেইল টি লিখেছিলেন তা আপনি এখনও দেখতে পারবেন, নিম্নের লিংকে গিয়ে।

https://groups.google.com/group/comp.infosystems.www.authoring.cgi/msg/cc7d43454d64d133

তখন এর নাম ছিল পিএইচপি / এফআই (PHP/FI) রিলিজের পরপরই জনপ্রয় হয়ে ওঠা পিএইচপির দ্বিতীয় ভার্সন (PHP/FI 2.0) অনলাইনে আসে ১৯৯৭ সালের নভেম্বরে।

By 1997, PHP/FI 2.0, the second write-up of the C implementation, had a cult of several thousand users around the world (estimated), with approximately 50,000 domains reporting as having it installed, accounting for about 1% of the domains on the Internet, While there were several people contributing bits of code to this project, it was still at large a one-man project.

সে সময় প্রায় ৫০ হাজার ব্যবহারকারী পিএইচপি ব্যবহার করা শুরু করেছে, তাদের ওেয়েবসাইট গুলোতে, যা ছিল সে সময়ের মোট ওয়েবসাইটের ১% মাত্র। তবে, পিএইচপি জনপ্রিয়তার মেইনস্ট্রিমে আসে মূলত এর ভার্সন ৩ রিলিজ পাওয়ার পর। অ্যান্ডি গুটম্যানস (Andi Gutmans ) এবং জিভ সুরাস্কি (Zeev Suraski) নামে দুজন ইউনিভার্সিটির ছাত্র তাদের একটি ইকর্মাস বেজড প্রজেক্ট তৈরির জন্য পিএইচপিকে (PHP/FI 2.0) বেছে নেন। কিন্তু কাজ শুরু করার অল্প কিছুদিন পরেই তারা বুঝতে পারেন যে, তাদের প্রজেক্টটা সফলভৈাবে শেষ করতে হলে আসলে পিএইচপিকেই কিছুটা পরিবর্তন করা লাগবে। তারা দুজন এসময় রাসমুস কে মেইল করেন পিএইচপি সে অনুযায়ী পরিবর্তন করার উদ্দেশ্য নিয়ে, সাথে তাদের ইচ্ছা ছিল রাসমুস ও যেন তাঁদের সাথে এই প্রজেক্টে (পিএইচপি কোর পরিবর্তন) কাজ করেন। রাসমুস খুব সহজেই রাজি হয়ে যান, জিভ ও অ্যান্ডির প্রস্তাবে। পিএইচপি কে প্রায় পুরো নতুন করে লেখা হয় এই সময়। প্রয় ৯ মাস পাবলিক টেস্টিং এর পরে পিএইচপি ৩ অনলাইনে সবার জন্য উন্মুক্ত করা হয় ১৯৯৮ সালে জুনে। এসময় তারা পিএইচপির নাম পাল্টে Recursive Acronym এ PHP: Hypertext Preprocessor হিসেবে নামকরন করেন, যা আজও প্রচলিত আছ।

পিএইচপি ৩ বাজারে আসার অল্প কাল পরেই জিভ ও অ্যন্ডি পিএইচপির কোর পরিবর্তন করতে আবার নতুন করে প্রোগ্রাম লিখা শুরু করেন। কেননা এটি তখনো বিভিন্ন থার্ডপাটি ডেটাবেজ ও API এর মত জটিল বিষয়গুলো নিয়ে পুরোপুরি কাজ করতে সক্ষম ছিল না। তারা তা করতে Zend engine এর জন্ম দেন। Zeev ও Andi এর নামের সংমিশ্রনে Zend নামের উৎপত্তি। আর তারই সফলতায় ১৯৯৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে পিএইচপি ৪ (PHP 4) এর বেটা ভার্সন রিলিজ হয়। ২০০০ সালের মে মাসে এর চুড়ান্ত ভার্স বের হয়। আগের ভার্সনের তুলনার একে অনেক বেশি উন্নতমানের ও কর্মোপযোগী করতে এটিকে আরো অধিক সংখ্যক ওয়েব সার্ভারের উপযোগী করা হয়। একই সাথে এটিকে আরো নিরাপদ ভাবে ইউজার ইনপুট নিয়ে কাজ করতে সক্ষম করে তোলা হয়। পাশাপাশি নতুন সুবিধা হিসেবে এটিতে HTTP সেশন, Output buffering এর মতো ফিচার যোগ হয়। একই সাথে নতুন ল্যাঙ্গুয়েজ কনন্ট্রাক্টও এ ভার্সনে যোগ করা হয়।  আরও উন্নত ফিচার নিয়ে Zend Engine 2.0  এর উপর ভিত্তি করে ২০০৪ সালের জুলাই মাসে নতুন PHP 5 রিলিজ হয়। এই ভার্সনে যে  ডজন খানেক নতুন ফিচার সংযুক্ত হয়, তার মধ্যে অবজেক্ট মডেল (Object Model) বা অবজেক্ট ওরিয়েন্টেড প্রোগ্রামিং এবং এস.পি.এল বা স্ট্যান্ডার্ড পিএইচপি লাইব্রেরী অন্যতম। এরই মধ্যে ২০০৫ সাথে পিএইচপি ৬ ভার্সন রিলিজ করে যাতে নতুন ফিচার হিসাবে ইউনিকোড সংযুক্ত করা হয়। মূলত ২০১৪ ও ২০১৫ সালে পিএইচপি এর ৭ ভার্স রিলিজ করে যেটি ছিলো সব চাইতে সুরক্ষিত এবং সময় উপযোগী একটি ভার্সন। দীর্ঘদিন ধরে সকলে পিএইচপি ৫, ৫.৬  ব্যবহার করে আসছিল। কিন্তু তেমন দ্রুতগতিতে তথ্য প্রদান করতে একটু সমস্যা হতো যা PHP 7 এর মাধ্যমে সমাধান করা হয়। এর পরে ২৬শে লভেম্বর ২০২০ সালে পিএইচপি ৮  (PHP 8) ভার্সন রিলিজ করা হয়। PHP 8 version এর JIT Compiler সব থেকে ভালো কাজ করে। বর্তমানে এই পিএইচপি ৮ ভার্সন অনেকে ব্যবহার শুরু করেছে।

পিএইচপি কি?

পিএইচপি হলো সার্ভার সাইড স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ। স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ? তাহলে স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ এবং প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ এর মধ্যে পার্থক্য কি? স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ শুধু কোন ইভেন্টস ঘটলেই কাজ করে বা কোন কিছু করে। অন্যদিকে প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ কোন ইভেন্টস না ঘটলেও রেসপন্স করতে পারে।

জাভাস্ক্রিপ্ট হচ্ছে আর একটা সুপরিচিত স্ক্রিপ্টিং ল্যাংগুয়েজ, কিন্তু জাভাস্ক্রিপ্টের মতো করঅয়েন্ট সাইডে রান না হয়ে পিএইচপি রান হয় সার্ভার সাইডে। পিএইচপি ইউজারের ব্রাউজারে রান না করে সার্ভারে রান করে। যেহেতু পিএইচপি সার্ভারে রান করে তাই এটা নিজে নিজেই রান করতে পারে না, তাই এটাকে রান করতে হলে আমাদের দরকার একটা ওয়েব সার্ভার, কিন্তু এটা যেভাবে আছে সেভাবেই রান করতে কোন কম্পাইলারের প্রয়োজন নাই, যেমন প্রয়োজন হয় সি, ভাভা প্রোগ্রাম রান করতে। তাই একটা পিএইচপি স্ক্রিপ্ট লিখে ওয়েব সার্ভারে রাখলেই আমাদের কাজ শেষ, আর তাহলেই প্রোগ্রাম রান করবে। পিএইচপিকে পিজাইন করা হয়েছে এইচটিএমএল এর সাথে ব্যবহার উপযোগী করে। পিএইচপি এইচটিএমএল এর ভিতর এমবেডেড হতে পারে আবার এটাকে এইচটিএমএল এর সাথে ব্যবহার করা যেতে পারে এবং শেষে পিএইচপি ব্রাউজারে এইচটিএমএল রিটার্ন করে। পিএইচপি কোড হচ্ছে আমাদের ইনপুট এবং ওয়েব পেজ হচ্ছে তার আউটপুট। আমরা যেসব ফাইল তৈরি করবো তার শেষে .php দিয়ে সার্ভারকে বোঝাবো যে আমরা পিএইচপি নিজে কাজ করছি। আমরা যারা ওয়েব নিয়ে কাজ করি তারা .htm ও .html এর সাথে সবাই পরিচিত যা কিনা এইচটিএমএল ফাইলের শেষে (ফাইলের এক্সটেনশন হিসেবে) লেখা হয়, পিএইচপি এর ক্ষেত্রে ঠিক সেই একই ব্যাপার। কিন্তু পিএইচপি আমাদেরকে দিবে আরও বেশি ফ্লেক্সিবিলিটি, এইচটিএমএল পেজ হলো স্বভাবতই স্ট্যাটিক মানে ভিজিটর সবসময় একই পেজ দেখে কিন্তু পিএইচপি দিয়ে ্মরা ডাইনামিক পেজ তৈরি করতে পারি, মানে পেজের কন্টেন বদলানো যাবে। কিছু কন্ডিশানের উপর ভিত্তি করে যেমন ইউজারের সাথে ইন্টারেক্ট করে অথবা ডাটাবেজে রক্ষিত ডাটার উপর ভিত্তি করে। পিএইচপি এর সিন্টেক্সসমূহ সি, জাভা এবং পার্লের সাথে অনেকটাই মিল আছে। আপনি যদি এই তিনটার যেকোন একটা জানেন তাহলে আপনি অনেক মিল খুঁজে পাবেন, যদি নাও জেনে থাকেন তাহলেও কোন সমস্যা নেই। কারণ পিএইচপি জানার জন্য আপনার কোন ল্যাংগুয়েজ জানা থাকার দরকার নাই।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।