বুরুজ কি?

মুসলিম স্থাপত্য শিল্পের মধ্যে মসজিদ স্থাপত্য যেমন স্থাপত্যের ইতিহাসে অন্যতম, তেমনি মসজিদ স্থাপত্যের মধ্যে বুরুজ নির্মাণ একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থাপত্য। খলিফা আল ওয়ালিদের আমল থেকে শুরু করে আধুনিক বিশ্বের অধিকাংশ মসজিদেই বুরুজ নির্মাণ করা হয়। মসজিদের দেয়াল কিংবা কোণকে দৃঢ়করণের জন্য বরুজ নির্মিত হয়।  

বুরুজ বলতে যা বুঝায়ঃ মসজিদ স্থাপত্য শিল্পে বুরুজ স্বাধীনভাবে দণ্ডায়মান ইমারত কিংবা অন্য কোন ইমারতের অংশও হতে পারে। ইমারতের দেওয়াল ও কোণকে মজবুত করার জন্য বৃত্তাকার বর্গাকার বা অষ্টকোণাকার মোটা ও শক্তিশালী খুঁটিকে প্রধানত বুরুজ বলা হয়।

সর্বপ্রথম নির্মিত বুরুজঃ খলিফা আল ওয়ালিদের আমলে দামেস্ক মসজিদের চারকোণে চারটি বুরুজ নির্মিত হয়। এ বুরুজসমূহ প্রাচীন দেবমন্দিরের অংশ ছিল। ঐতিহাসিকগণ মনে করেন যে, এ চারটি প্রাচীন বুরুজ ইসলামের প্রথম মিনার হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

পরবর্তীকালে বুরুজঃ দামেস্ক মসজিদের পরবর্তীতে সামাররা মসজিদে বুরুজ নির্মিত হয়। এ মসজিদের মজবুত খুঁটির উপর অর্ধ গোলাকৃতির বুরুজ সংস্থাপিত হয়। বহিঃপ্রাচীরের চারকোণায় চারটি কৌণিক বুরুজ নির্মিত হয়। সামাররা মসজিদের উত্তর ও দক্ষিণ দেয়ালে ৮টি করে ১৬টি এবং পূর্ব ও পশ্চিম দেয়ালে ১২টি করে ২৪টি, সর্বমোট ৪০টি বুরুজ রয়েছে। বুরুজসমূহ ছিল গোলায়িত। অতঃপর পরবর্তীকালে অধিকাংশ মসজিদে বুরুজ নির্মিত হয়।

দামেস্ক মসজিদের পরবর্তীতে বিভিন্ন মসজিদে বিভিন্ন প্রকার আকষর্ণীয় ও সুদৃশ্য বুরুজ নির্মাণ করা হয়। মুসলিম স্থাপত্যের ইতিহাসে তথা মসজিদ নির্মাণে বুরুজ একটি গৌরবময় স্থাপত্যের নিদর্শন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।