মুর সভ্যতা কি?

মুর সভ্যতা

স্পেনের আরবরা (মুররা) ৭১২ হতে ১৪৯২ সন পযর্ন্ত সুদীর্ঘ ৭৮০ বৎসর শাসন করে স্পেনের ইতিহাসে এক অনন্য অধ্যায় রচনা করেন। তাদের শাসনামলে শিক্ষা-দীক্ষা, জ্ঞান-বিজ্ঞানে স্পেনে এক উন্নতির চরম শিখরে পৌছেছিল। মুরদের প্রচেষ্টার ফলে মধ্যযুগে ইউরোপের অন্যান্য রাষ্ট্রের তুলনায় স্পেন অনেক উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হয়।

মুর সভ্যতাঃ মধ্যযুগে ইউরোপ যখন তমসাচ্ছন্ন, রাজনৈতিক অনৈক্য, সামাজিক অনাচার ও ব্যাভিচার, অর্থনৈতিক বির্পযয় ইউরোপকে নিমজ্জিত করে রেখেছিল, তখন স্পেনে মুরদের শিক্ষা-দীক্ষা, জ্ঞান-বিজ্ঞান সারা বিশ্বজুড়ে খ্যাতি লাভ করেছিল। তাদের সংস্কৃতি ও সভ্যতা সারা বিশ্বে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল।

মুর শাসনামলে স্পেনে অনেক জ্ঞানী-গুণীর সমাবেশ ঘটেছিল। তাদের সৃজনশীল কীর্তি শুধু স্পেনেই নয় সারা বিশ্বের দরবারে সমাদৃত হয়। স্পেনের মুসলমানেরা ভূ-গোল ও ইতিহাস চর্চায় উন্নতি করেছিল এবং এ শাস্ত্রে তাদের অবদান ছিল স্মরণীয়। দর্শন শাস্ত্রেও স্পেনীয় মুসলমানরা কৃতিত্ব দেখায়। তারা ধর্ম ও বিজ্ঞান, যুক্তিবিদ্যা ও বিশ্বাসের মধ্যে সমন্বয় ঘটায় এবং ইউরোপীয়দেরকে গ্রীক দর্শন সম্বন্ধে জ্ঞাত করে। উদ্ভিদ বিজ্ঞান ও রসায়নে স্পেনীয় মুসলমানরা বেশ দক্ষ ছিল। স্পেনীয় আরবরাই ইউরোপে বারুদের ব্যবহার শুরু করে। মুর সভ্যতার আরেকটি অবদান ছিল কাগজ উৎপাদন ও এর ব্যবহার। গ্রহ-নক্ষত্রের গতি নির্ধারণে মুররা স্পেনে যথেষ্ট কৃতিত্ব দেখান। তারা বৎসরের দৈর্ঘ্য, আপেক্ষিক গুরুত্ব ও নক্ষত্রের গতিবিধি, সূর্যের কক্ষের কেন্দ্রচ্যুতি ও এর কক্ষের গতি প্রভৃতি বিষয়ে অবদান রাখেন। স্পেনীয় মুসলিম জ্যোতির্বিদরা ইউরোপে প্রথম মানমন্দির নির্মাণ এবং বার্ষিক পঞ্জিকা আবিষ্কার করেন। স্পেনীয় মুসলমানদের স্থাপত্য কীর্তি ছিল অত্যন্ত প্রশংসনীয়। মুর স্থাপত্য শিল্প মুসলিম সভ্যতাকে চরম শিখরে পৌছেছিল। মুররা স্ফটিক ও কৃত্রিম পাথর দিয়ে দ্রব্যাদি বানিয়ে দক্ষতার পরিচয় দেয়। মুসলিম স্পেনে সংস্কৃতি ও বিজ্ঞানে যে উন্নতি হয়েছিল, ইউরোপের কোথাও তা দেখা যায়নি। এ সময় চিকিৎসা বিজ্ঞানের চরম উন্নতি হয়েছিল।

মুসলমানেরা স্পেনে যে সংস্কৃতি ও সভ্যতা গড়ে তুলেছিল সত্যি তা ছিল অত্যন্ত উন্নত মানের।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।