ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব

টমাস রবার্ট ম্যালথাস একজন ব্রিটিশ ধর্মযাজক ও প্রখ্যাত অর্থনীতিবিদ। ১৭৯৮ খ্রিস্টাব্দে তার জনসংখ্যা বিষয়ক বিখ্যাত প্রস্থ `An Essay on the Principle of Population` প্রকাশিত হয়। এ গ্রন্থে তিনি জনসংখ্যা  ও খাদ্য উৎপাদনের সম্পর্কে বিষয়ে যে বক্তব্য প্রদান করেন তাই ‘ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব’ নামে পরিচিত।

ম্যলথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বঃ ম্যালথাস খাদ্যের যোগান এবং ক্রমহ্রাসমান উৎপাদন বিধির পটভূমিকায় জনসংখ্যা বৃদ্ধির সমস্যাটি আলোচনা করেন। তিনি মনে করেন, আর্থিক সামর্থ্যের চেয়ে জনসংখ্যা বেশি হলে মানুষের উন্নতি হবে না। সীমিত সম্পদের মধ্যে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা অর্থনৈতিক সুখকে নস্যাৎ করে দেয়। ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্বের মূল বক্তব্য হলো জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণহীন অবস্থায় জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পায় এবং মানুষের জীবনধারণের অন্যতম প্রধান মৌলিক উপকরণ খাদ্যের উৎপাদন বৃদ্ধি পায় গাণিতিক হারে। জ্যামিতিক ও গাণিতিক হারে বৃদ্ধি পাওয়ার অর্থ হলো জনসংখ্যা বৃদ্ধি পায় ১, ২, ৪, ৮, ১৬ ইত্যাদি হারে এবং খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি পায় ১, ২, ৩, ৪, ৫ ইত্যাদি হারে। এ হারের পার্থক্যের কারণে এক শতাব্দীর মধ্যে জনসংখ্যা ও খাদ্য উৎপাদনের অনুপাত হয় ১৬:৫; দুই শতাব্দী পরে হয় ২৫৬:৯ এবং দুই হাজার বছর পরে এ দুয়ের ব্যবধান হয় অপরিমেয়।

বিভিন্ন কারণে ম্যালথাসের জনসংখ্যা তত্ত্ব ভ্রান্ত বলে অভিহিত করা হয়। শিল্প বিপ্লব ও বিজ্ঞানের অগ্রগতি মানুষের জীবনযাত্রার মান বাড়াবে-উনিশ শতকের এ আশাবাদী ধারণার মূলে ম্যালথাস কুঠারাঘাত করেন। তাই আধুনিক অর্থনীতিবিদদের নিকট ম্যালথাসের তত্ত্বটি গ্রহণযোগ্য নয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।