সাজার-উদ-দার কে?

সাজার-উদ-দার ছিলেন মিশরের মামলুক বংশের প্রতিষ্ঠাতা। মামলুক শব্দের অর্থ ক্রীতদাস। মহান সালাহ উদ্দিনের মৃত্যুর পর মুসলিম জাহানের মহাদুর্দিনে মামলুকরা ইসলামকে আসন্ন ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করেন। আইয়ুবী বংশের ধ্বংসস্তুপের উপর আস সালাহর বিধবা পত্নী সাজার-উদ-দার মিশরে মামলুক বংশ প্রতিষ্ঠা করেন।

পরিচিতিঃ সাজার-উদ-দার এক সময়ে আব্বাসীয় খলিফা মুতাসিম বিল্লাহর ক্রীতদাসী ছিলেন। কারও মতে সাজার-উদ-দার তুর্কি আবার কারও মতে আর্মেনিয়ান ক্রীতদাস বা মামলুক। প্রথমে তিনি আব্বাসীয় খলিফা মুতাসিম, বিল্লাহর হারেমে ছিলেন। পরে তিনি আইয়ুবী সুলতান আস সালেহ এর অধিকারে আসেন এবং এক পর্যায়ে তার স্ত্রীর মর্যাদা লাভ করেন।

ক্ষমতা লাভঃ স্বামীর মৃত্যুর পর ১২২৪ খ্রিঃ তিনি সিংহাসনে আরোহণ করে মিশরের মামলুক বংশের প্রতিষ্ঠা করেন। ৮০ দিন রাজত্ব করার পর মিশরের বিক্ষুব্ধ মামলুক আমীরগণ সাজার-উদ-দারের সেনাপতি আইবেককে সুলতান হিসেবে নির্বাচিত করলে সাজার-উদ-দার তাকে বিবাহ করেন এবং সিংহাসনে অধিষ্ঠিত করান। আইবেক (১২৫০-৫৭) ৭ বছর শাসন পরিচালনা করে সাজার-উদ-দার কর্তৃক নিহত হন। এ ঘটনার অব্যবহিত পরেই সাজার-উদ-দারকেও হত্যা করা হয়।

জগতের অতি অল্প রাজ বংশই মিশরের মামলুক সুলতানদের ন্যায় খ্যাতি লাভে সমর্থ হয়েছে। তারা মিশরে প্রায় ৩ শত বছর রাজত্ব করেন। তাদের সুদীর্ঘ রাজত্বকাল তাই ইসলামের ইতিহাসে নানা দিক দিয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

মনসব বা মনসবদার কি?

মনসবদারী প্রথা সম্রাট আকবরের সমকালীন পৃথিবীর সামরিক সংস্কারের ইতিহাসে এক অভিনব সংযোজন। সম্রাট আকবর তার বিচক্ষণতা ও দূরদর্শিতার আলোকে সামরিক আরো পড়ুন

মুহতাসিব বলতে কি বুঝ?

আব্বাসীয় শাসনামলে সর্বপ্রথম পুলিশ বিভাগের সমান্তরালে দিওয়ান আল হিসবা নামে একটি বিশেষ বিভাগ প্রতিষ্ঠিত হয়। তৃতীয় আব্বাসীয় খলিফা আল-মাহদি ছিলেন আরো পড়ুন

মুঘল বিচার ব্যবস্থা
মুঘল বিচার ব্যবস্থা

যে কোন রাষ্ট্র বা সাম্রাজ্যের সুষ্ঠু শৃঙ্খলা বজায় রাখার ক্ষেত্রে বিচার বিভাগের ভূমিকা অনস্বীকার্য্য। তেমনি ভারতীয় উপমহাদেশে মুঘলদের বিচার ব্যবস্থা আরো পড়ুন

বঙ্গভঙ্গ রদ করা হয় কেন?

ভারতীয় উপমহাদেশের জাতীয়তাবাদ ও জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের ইতিহাসে ১৯০৫ সালের বঙ্গভঙ্গ একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। পূর্ববাংলার মুসলমানরা তাদের স্বার্থের অনুকূলে ভেবে বঙ্গভঙ্গকে আরো পড়ুন

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।