১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান কি ছিল?

১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান ছিল পাকিস্তানি স্বৈরাচারী সামরিক শাসন ও শোষনের বিরুদ্ধে বিশেষ করে পূর্ব পাকিস্তানের অত্যাচারিত ও শোষিত জনসাধারণের ব্যাপক ও সর্বাত্মক সফল প্রতিবাদী আন্দোলন। ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে পূর্ববাংলার জনসাধারণের মধ্যে যে একাত্মবোধ ও বাঙালি জাতীয়তাবাদের বীজ রোপিত হয়, পরবর্তীকালে পূর্ববাংলার প্রতি পাকিস্তানি শোষকগোষ্ঠীর চরম বৈষম্যমূলক নীতি, পদক্ষেপ, উদাসীনতা ও শোষণ-বঞ্চনার পটভূমিকায় সংঘঠিত ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে তার সফল ও সার্থক অষ্কুরোদগম ঘটে।

১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানের পটভূমিঃ ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান কোনো আকস্মিক ঘটনা ছিল না। এটা ছিল পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর স্বৈরাচারী শোষণনীতির বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের আপামর জনসাধারণের দীর্ঘদিনের ক্ষোভ ও অসন্তোষেরই চরম অগ্নিগর্ভ বহিঃপ্রকাশ। পাকিস্তান সৃষ্টির পর থেকে পূর্ব পাকিস্তানের প্রতি শোষণের যে কালো থাবা সর্বত্র বিস্তৃত হতে থাকে, আইয়ুব খান কর্তৃক সামরিক শাসন প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে তা আরো প্রসারিত হয়। এক দশককালীন সামরিক শোষণের জাঁতাকলে নিষ্পেষিত পূর্ববাংলার জনসাধারণের বাকস্বাধীনতাটুকু পযর্ন্ত যখন ভূলুণ্ঠিত সেই দুর্যোগময় মুহূর্তের এক যুগ সন্ধিক্ষণে রাজনৈতিক পুনরুজ্জীবন, স্বায়ত্তশাসন প্রতিষ্ঠা, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও গণবিরোধী স্বৈরাচারী সামরিক সরকারের মূলোৎপাটনের নিমিত্ত বাঙালি জনসমাজ ১৯৬৯ সালে এক প্রচণ্ড আক্রোশে ফেটে পড়ে। এ গণঅভ্যুত্থানের ফলে এক দশককালীন অত্যাচারী সামরিক শাসক আইয়ুব খানের পতন ঘটে। ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান পূর্ব পাকিস্তানের সমাজজীবনে ব্যাপক প্রভাব ফেলে।

১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান ছিল পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর স্বৈরাচারী শোষণনীতির বিরুদ্ধে পূর্ব পাকিস্তানের আপামর জনসাধারণের দীর্ঘদিনের ক্ষোভ ও অসন্তোষেরই চরম অগ্নিগর্ভ বহিঃপ্রকাশ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।