ফরায়েজি আন্দোলন কি?

Forayeji

ভারতীয় উপমহাদেশের ধর্মসংস্কার আন্দোলনের ইতিহাসে ফরায়েজি আন্দোলন একটি চিরস্মরণীয় ঘটনা। এ আন্দোলনের মহানায়ক ছিলেন সময়ের কৃতী সন্তান হাজি শরিয়তুল্লাহ। যদিও ফরায়েজি আন্দোলন মূলত ধর্মীয় সংস্কারমূলক আন্দোলন ছিল কিন্তু পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে এ আন্দোলন সামাজিক ও রাজনৈতিক আন্দোলনের রূপ নেয়। সুতরাং উপমহাদেশের রাজনীতি অধ্যয়নে ফরায়েজি আন্দোলনের গুরুত্ব সুদূরপ্রসারী।

ফরায়েজি আন্দোলনঃ আঠারো শতকের শেষার্ধে এবং উনিশ শতকের প্রথমভাগে এ উপমহাদেশের জমিদার মহাজন, আমলা ও নীলকরদের অমানুষিক অত্যাচার ও ইসলাম বিরোধী কার্যকলাপ থেকে মুসলমানদের রক্ষা করার জন্য হাজি শরিয়তুল্লাহ ফরজভিত্তিক যে আন্দোলন গড়ে তোলেন ইতিহাসে তাই ফরায়েজি আন্দোলন নামে খ্যাত। ফরজ শব্দ হতে ফরায়েজি শব্দের উৎপত্তি। হাজি শরিয়তুল্লাহ মুসলমানদের ফরজ পালনের উপর সবচেয়ে বেশি গুরুত্বারোপ করেন। তার মতে, ফরজ আদায়ে অবহেলাই মুসলমানদের দুর্দশার মূল কারণ। তাই তিনি ফরজ পালনের জন্য তার অনুসারীদের নির্দেশ দেন। ফরজ পালনই তার আন্দোলনের মূলভিত্তি বলে একে ফরায়েজি আন্দোলন বলা হয়।

ফরায়েজি আন্দোলনের উদ্দেশ্যঃ প্রতিটি আন্দোলনের কোনো না কোনো লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য থাকে। ফরায়েজি আন্দোলনের প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যসমূহ যথা-

১.    সকল মুসলমানকে ইসলামি মূলনীতি তথা ফরজের উপর প্রতিষ্ঠিত করা।

২.    ইসলাম বিরোধী কার্যকলাপ ও কুসংস্কার রোধে মুসলমানদের উদ্বুদ্ধ করা এবং আল্লাহ প্রদত্ত শক্তিতে বলীয়ান হয়ে সকল জুলুম, অত্যাচার, নির্যাতন প্রভৃতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে তাদের অনুপ্রাণিত করা।

৩.    অধিকার আদায়ে মুসলমানদেরকে সচেতন ও আত্মপ্রত্যয়ী করে গড়ে তোলা।

৪.    ব্রিটিশ শাসক এবং তাদের সৃষ্ট জমিদার, মহাজন, আমলা ও নীলকরদের অমানুষিক অত্যাচার থেকে মুসলমানদের রক্ষা করা। ফরায়েজি আন্দোলন ছিল নিঃসন্দেহে বাংলার কৃষক তথা মেহনতি মানুষের সামাজিক ও ধর্মীয় স্বাধীনতা, অর্থনৈতিক মুক্তি ও রাজনৈতিক দিক-নির্দেশনার আলোকবর্তিকাস্বরূপ সর্বোপরি এ আন্দোলনকে আমরা বাংলার মুসলমান সমাজের গণজাগরণের প্রতিচ্ছবি হিসেবে আখ্যায়িত করতে পারি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।