১৯৫৪ সালের নির্বাচনের পটভূমি কি?

১৯৫৪ সালের নির্বাচন বাংলার রাজনৈতিক ইতিহাসে একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে পূর্ববাংলার রাজনৈতিক দলগুলো শেরে বাংলা এ. কে. ফজলুল হক, মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ও হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী নেতৃত্বে ২১ দফাভিত্তিক যুক্তফ্রন্ট গঠন করে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। ২১ দফা নির্বাচনি ইশতেহারের উপর ভিত্তি করে যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে জয়লাভ করে। এ নির্বাচনের ফলে মুসলিম লীগের দীর্ঘ নয় বছরের শাসন ও শোষণের অবসান হয় এবং বাংলার মানুষ তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে অধিকার-সচেতনতার পরিচয় দেয়, যা পরবর্তীকালে স্বাধিকার আন্দোলনের জন্ম দেয়।

১৯৫৪ সালের নির্বাচনের পটভূমিঃ ১৯৫৪ সালের প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন যুক্তপাকিস্তানের প্রথম নির্বাচন (পূর্ব পাকিস্তানে)। ১৯৫১ সালে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা থাকলেও পাক সরকার নির্বাচন দিতে পড়িমসি করে। তাদের ধারণা ছিল ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের ভয়াবহতা পূর্ব পাকিস্তানের নির্বাচনে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। কেন্দ্রীয় মুসলিম লীগ নির্বাচনে পরাজিত হবে। সে জন্যে ক্ষমতাসীন মুসলিম সরকার নির্বাচন অনুষ্ঠানে বিলম্ব করে। তারা চেয়েছিল পূর্ব বাংলায় তাদের তাঁবেদার সরকার গঠিত হবে। তাদের শাসনক্ষমতা অক্ষুণ্ণ থাকবে। সে প্রচেষ্টার কৌশল হিসেবে ১৯৫২ সালে পূর্ববাংলার প্রাণপ্রিয় মাতৃভাষা বাংলার উপর আক্রমণ চালায়। ১৯৪০ সালের পাকিস্তানে ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাব গৃহীত হয়। এ প্রস্তাবের ভিত্তিতে পাকিস্তান গঠন করার কথা থাকলেও পরবর্তীকালে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর ‘দ্বিজাতিতত্ত্বের’ ভিত্তিতে পাকিস্তান সৃষ্টি হয়। লাহোর প্রস্তাব অনুযায়ী ‘একাধিক রাষ্ট্র’ গঠিত হলে পূর্ববাংলা প্রথমেই স্বাধীন রাষ্ট্র হতে পারত। কিন্তু দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে ধর্মীয় ঐক্যের উপর ভিত্তি করে একটি রাষ্ট্র পাকিস্তান গঠন করা হয়। দেশ বিভক্তির পর থেকে পূর্ববাংলার জনগণ রাজনৈতিক, সামাজিক, অর্থনৈতিক অধিকারসমৃদ্ধ সুখী ও স্বাধীন জীবনযাপনের স্বপ্ন দেখে আসছিল। কিন্তু পাকিস্তান সৃষ্টির অব্যবহিত পর থেকেই পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী পূর্ববাংলার প্রতি বিমাতাসুলভ আচরণ শুরু করে। তাদের কার্যকলাপে স্পষ্টভাবে বুঝা যায়, পূর্ব পাকিস্তানের স্বার্থরক্ষা করতে তারা সম্পূর্ণ নারাজ। তাই নির্বাচনের মাধ্যমে জনপ্রতিনিধিদের হাতে ক্ষমতা দিতে তারা গড়িমসি করে। কিন্তু পূর্ববাংলার নেতৃবৃন্দের চাপের মুখে মোহাম্মদ আলীর তৎকালীন সরকার ১৯৫৪ সালের মার্চ মাসে নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করে।

পরিশেষে ১৯৫৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের বিপুল বিজয় বাঙালি জাতির জীবনে এক স্মরণীয় অধ্যায়। এ নির্বাচনে জয় লাভ করে এদেশবাসী অধিকার সচেতন হয়ে উঠে। নির্বাচনের ফলাফল বাঙালিকে রাজনীতি সচেতন ও জাতীয়তাবাদী চেতনায় উদ্বুদ্ধ করে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।