হোম

বিভাগসমূহ

মহাজ্ঞানী

জ্ঞান মানুষের জীবনের সব থেকে বড় এবং মহা-মূল্যবান সম্পদ। যদি মানুষের জ্ঞান না থাকতো। তাহলে মানুষও চতুষ্পদ প্রাণিদের মত হতো। তাই জ্ঞানের মূল্য হয় না। একমাত্র এই জ্ঞানের মালিক তিনি, যিনি আমাদের সৃষ্টি করেছেন। যিনি এই সমগ্রহ বিশ্বজগতের মালিক। তিনিই জ্ঞানীদের জ্ঞানী – মহাজ্ঞানী। আমরা এখানে বিন্দুকায় প্রাণিমাত্র। আরও জানতে চাইলে- ক্লিক করুন এখানে…

১৭৬৫ সালের ১২ আগস্ট এক ফরমান বলে দিল্লির সম্রাট শাহ আলম কোম্পানিকে বাংলা, বিহার, ও উড়িষ্যার রাজস্ব আদায়ের অধিকার দেন।
দক্ষিণ এশিয়ার শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য কাশ্মীর সমস্যা ছিল বিরাট হুমকিস্বরূপ। স্বাধীনতা লাভের পর ভারত ও পাকিস্তান এ পযর্ন্ত ৪
ভারতবর্ষের ইতিহাসে ওহাবি আন্দোলন গুরুত্বপূর্ণ স্থান অধিকার করে আছে। উনিশ শতকে সংঘটিত ও আন্দোলন ভারতের মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে নব চেতনার
ভারতবর্ষে অতুলনীয় বৈভব পশ্চিমা বণিকদের যুগ যুগ ধরে আকৃষ্ট করে। এ উপমহাদেশে যেসব বণিক আগমন করেছে তন্মধ্যে ইংরেজদের নাম বিশেষভাবে
১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান ছিল পাকিস্তানি স্বৈরাচারী সামরিক শাসন ও শোষনের বিরুদ্ধে বিশেষ করে পূর্ব পাকিস্তানের অত্যাচারিত ও শোষিত জনসাধারণের ব্যাপক
১৯৫৪ সালের নির্বাচন বাংলার রাজনৈতিক ইতিহাসে একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে পূর্ববাংলার রাজনৈতিক দলগুলো শেরে বাংলা এ. কে. ফজলুল
গ্রামীণ সমবায় সমিতির মাধ্যমে সমবায় খামার ব্যবস্থা গড়ে উঠে। সমবায় কৃষি খামার গড়ে উঠলে দেশের কৃষির উন্নয়ন ঘটে। আর সমবায়
‘কৃষি’ ও ‘অর্থনীতি’ শব্দ দুটির সমন্বিত রূপ হচ্ছে কৃষি অর্থনীতি। ইংল্যান্ডে কৃষি বিপ্লবের সময় ‘কৃষি’ ও ‘অর্থনীতি’ দুটি খাতকে এক
উন্নয়নশীল ও অনুন্নত দেশের জনগণের প্রধান উপজীবিকা হলো কৃষি। কৃষি এসব দেশের আয়ের প্রধান উৎস। জীবনধারণের প্রয়োজনীয় উপাদান, শিল্পের কাঁচামাল
এক সাগর রক্তের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের এই দেশ। আমরা দীর্ঘ নয় মাস যুদ্ধ করে অর্জন করেছি স্বাধীনতা। স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ
সাম্প্রতিক মন্তব্যসমূহ